মাধবদীর আমদিয়ায় মৃত্যুর ২২ দিন পর কবর থেকে শিশুর মরদেহ উত্তোলন

মোঃ আল আমিন, মাধবদী (নরসিংদী) প্রতিনিধি:মৃত্যুর ২২ দিন পর সাফাত সালমান নূর নামে ১ বৎসর ৩ মাস বয়সী এক শিশুর মরদেহ উত্তোলন করেছে মাধবদী থানা পুলিশ। ঘটনাটি নরসিংদী জেলার মাধবদী থানার আমদিয়ার বৈলাইন গ্রামে।

২৪ ফেব্রুয়ারী বৃহস্পতিবার বিকেল চারটার দিকে নরসিংদীর ভূমি অধিগ্রহণ শাখা ও জে এম শাখার সিনিয়র সহকারী কমিশনার শ্যামল চন্দ্র বসাক এর উপস্থিতিতে নরসিংদীর মাধবদী থানার আমদিয়ার বৈলাইন গ্রাম থেকে নিহত শিশু সাফাত সালমান নূরের পিতার অভিযোগের ভিত্তিতে এ মরদেহটি উত্তোলন করা হয়।
নিহতের পিতার শাহাদাত হোসেনের অভিযোগের ভিত্তিতে জানা যায়, মাধবদী থানাধীন বৈলাইন গ্রামের মোঃ নবাব উদ্দিনের ছেলে মোঃ শাহাদাত হোসেনের সাথে রূপগঞ্জের চারিতালুক চৌধুরীবাড়ী এলাকার শফিকুল ইসলামের মেয়ে বৃষ্টি আক্তার (২২) এর সাথে প্রেম করে বিয়ে হয়। বিয়ের পর তাদের কোল জুড়ে আলোকিত করে সাফাত সালমান নূর নামে এক পুত্র সন্তান জন্ম গ্রহণ করে। এর পর বৃষ্টি আক্তারের পিতা মাতা নাতিসহ মেয়ে ও মেয়ের জামাইকে মেনে নেয়। কিছুদিন পূর্বে মোবাইল ফোনে পরিচয়ের সূত্র ধরে বৃষ্টি অজ্ঞাত এক যুবকের প্রেমে পরে।
গত ৬ জানুয়ারী কাউকে কিছু না বলে শিশু সন্তানসহ বাড়ী থেকে চলে যায় বৃস্টি আক্তার। পরে খোঁজ করে সে পিত্রালয়ে আছে জানতে পেরে তার স্বামী তাকে আনতে গেলে সে আসবেনা বলে জানিয়ে দেয়। পরে ২ ফেব্রুয়ারী বিকেলে তার সন্তানের মৃত্যুর সংবাদ পায় নিহত সাফাত সালমান নূরেরর পিতা। সংবাদ পেয়ে তাৎক্ষণিকভাবে শাহাদাত ও তার স্বজনরা শ্বশুর বাড়ীতে গিয়ে ছেলেকে মৃত অবস্থায় দেখে।
ওই সময় ছেলের মুখ দিয়ে লালা বের হচ্ছিল। পরে তরিঘরি করে লাশ দাখন করে ফেলে। পরে স্ত্রীর ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের ম্যাসেঞ্জারে কথিত প্রেমিকের সাথে তার ছেলেকে হত্যার পরিকল্পনার বিষয়টি জানতে পারে। পরে ১৭ ফেব্রুয়ারী থানায় একটি মামলা দায়ের করে। এঘটনায় নিহত শিশু সাফাত সালমান নূরের মা বৃষ্টি আক্তারকে আটক করেছে পুলিশ। এরই প্রেক্ষিতে আদালতের নির্দেশে বৃহস্পতিবার নিহত শিশু সাফাত সালমান নূরের মরদেহ উত্তোলন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *